Advertising
hemel
Advertising
hemel

নবীগঞ্জে অল্প বৃষ্টি হলেই স্কুলে যাওয়া বন্ধ হয়ে যায় কয়েক শতাধিক শিক্ষার্থীর

নবীগঞ্জে অল্প বৃষ্টি হলেই স্কুলে যাওয়া বন্ধ হয়ে যায় কয়েক শতাধিক শিক্ষার্থীর

ছনি চৌধুরী, (হবিগঞ্জ) নবীগঞ্জ প্রতিনিধিঃ সামান্য বৃষ্টি হলেই পানি বন্দি হয়ে পড়েন কয়েক শতাধিক শিক্ষার্থী সহ একাধিক পরিবার। সূত্রে জানা যায়, নবীগঞ্জ পৌর এলাকার নহরপুর গ্রামের নহরপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও নহরপুর গ্রামের একাধিক পরিবারের লোকজনের চলাচলের একমাত্র রাস্তা অল্প বৃষ্টি হলেই পানি জমে পুকুরে পরিনত হয় এতে করে পানি বন্দি হয়ে পড়েন নহরপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শত শত শিক্ষার্থী সহ নহরপুর গ্রামের প্রায় ২৫/৩০টি পরিবার। এতে করে রাস্তা দিয়ে প্রতিদিন যাতায়াতকারী কয়েক শতাধিক মানুষ ও স্কুলে পড়–য়া শিক্ষার্থীদের মারাত্মকভাবে দুর্ভোগ পোহাতে হয়।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, অল্প বৃষ্টি হলেই উক্ত রাস্তাটির মধ্যে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়ে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়ে এত করে নহরপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের বিদ্যালয়ে আসা-যাওয়া বন্ধ হয়ে যায়। অন্যদিকে রাস্তার জায়গা একাধিক ব্যক্তি মালিকানা হওয়ায় সংস্কারের উদ্যোগ নিচ্ছন না কেউ।

অভিভাবক সূত্রে জানা গেছে, রাস্তাটির মধ্যে জলাবদ্ধতার কারনে উক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা যেতে চায় না। দীর্ঘদিন ধরে নহরপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নহরপুর গ্রামের প্রায় ২৫/৩০টি পরিবার বসবাস করে আসছে। একমাত্র চলাচলের রাস্তায় জলাবদ্ধতার কারণে শিক্ষার্থী সহ পাশাপাশি ২৫/৩০টি পরিবারের ৪শতাধিক লোকজনকে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয়। নহরপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ক্ষুদে শিক্ষার্থী নিয়ামুল হক জানান, বৃষ্টি হলে বিদ্যালয়ে আসতে আমাদের সমস্যায় অয় রাস্তায় অনেক পানি থাকে তাই স্কুলে আইতে ভালো লাগে না।

সরেজমিনে দেখাযায়, বৃষ্টির পর বিদ্যালয়ে প্রবেশ করা কঠিন হয়ে পড়ে। দেখাযায় ক্ষুদে শিক্ষার্থীরা নিজেরা স্কুলে আসা যাওয়া করার জন্য জলাবদ্ধতা নিরসেেনর চেষ্টা করেন। দীর্ঘদিন ধরে অল্প বৃষ্টিতেই রাস্তায় জলাবদ্ধতার কারণে বিদ্যালয়ে পাঠদান ব্যাহত সহ বিভিন্ন একাধিক মালিকানার সমস্যা হলেও প্রশাসনের পক্ষ থেকে কোনো কার্যকরী প্রদক্ষেপ চোখে পড়েনি বলে জানান ভুক্তভোগী এলাকাবাসী। দ্রুত পানি নিষ্কাশন ও জলাবদ্ধতা দূর করণে সংশি¬ষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষন করেছেন ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী ও এলাকাবাসী।

Related posts