Advertising
hemel
Advertising
hemel

খেলাছেড়ে যুদ্ধে নেমেছিলেন ক্রিড়াবিদরা

Mukti joddha

১৯৭১সালে ক্রিড়াঙ্গনে মুক্তিযুদ্ধেদের সাথে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে লড়াই করেছিল স্বাধীন বাংলার ফুটবল দল। অস্ত্র নয় বলপায়ে বিশ্বকে জারিয়েছিলেন হানাদার বাহিনীর নৃশংসতার কথা গণহত্যা আর যুদ্ধ বিপর্যস্থর বাংলাদেশের কথা। দেশ মাতৃকার টানে একই ভাবে ব্যাট বল ছেড়ে অস্ত্র ধরেছিলেন শহীদ মোস্তাক, জুয়েল,রবিরা।

কমন ওয়েল্স দলের বিরুদ্ধে পাকিস্থানে সেরা একাদশে সুযোগ পাওয়া কিশোর রকিবুল হাসান ঢাকার মাঠে ব্যাট করতে নেমেছিল জয় বাংলার প্রতিক নিয়ে।

কাজী কামাল উদ্দীন প্রিয় বাস্কেটবল ছেড়ে হাতে নিয়ে ছিলেন বোমা, বারুদ খেলার জগত ছেড়ে চলে গেল অন্য জগতে। মুক্তিযুদ্ধারা লড়াই করেছিলেন কোন কিছুর প্রত্যাশা ছাড়ায়। স্বাধীনতার ৪৪বছর পরও ঐসব লোকরা পায়নি কোন স্বকৃতি ১৯৭১ এর ডিসেম্বর থেকে ২০০১৫সলের ডিসেম্বর পর্যন্ত বিজয়ের এই ক্ষনে এসে অনেকের কন্ঠে এখন আশা অপূর্ণ থেকে যাওয়ার দীর্ঘ শ্বাস।

দেশকে ভালোবেসে যারা নিজেদের ছুড়ে ফেলে দিয়েছিলেন নিজেদের ভবিষ্যতারা বেঁচে থাকলে কি ভাবতেন? তাদের কাছে কি জবাব দিত নতুন প্রজন্মের ক্রিয়াবিদরা? তবে অনেক না পাওয়ার মধ্যেও বাংলাদেশের অর্জন কম না। লিয়াজ মোরশেদসহ ৫জন গ্রান্ড মাষ্টার দাবাড়ু। সাকিব, মাশরাফি, মুশফিক ও মুস্তাফিজের মত বিশ্ব ক্রিয়াঙ্গনে উড়িয়েছে লাল সবুজ পতাকা।

Related posts